পাকা দালানে ছেলেরা বৃদ্ধা 'মা'য়ের আশ্রয় বাঁশঝাড়ে, উদ্ধার করলেন ইউএনও কাফী - দৈনিক বরিশাল ২৪ দৈনিক বরিশাল ২৪পাকা দালানে ছেলেরা বৃদ্ধা 'মা'য়ের আশ্রয় বাঁশঝাড়ে, উদ্ধার করলেন ইউএনও কাফী - দৈনিক বরিশাল ২৪

প্রকাশিতঃ নভেম্বর ২৭, ২০২১ ১:৪৭ পূর্বাহ্ণ
A- A A+ Print

পাকা দালানে ছেলেরা বৃদ্ধা ‘মা’য়ের আশ্রয় বাঁশঝাড়ে, উদ্ধার করলেন ইউএনও কাফী

সোহেল আহমেদঃ ‘মা‘ পৃথিবীর সবচেয়ে প্ন    তাঁর স্নেহের সন্তানের পৃথিবীর আলো দেখা, দশমাস দশদিন গর্ভেধারণ করে মৃত্যু যন্ত্ জন্মদিলেন সন্তান! অথছ নৈতিক শিক্ষার অবক্ষয় আর বউপ্রিতি সহ নানা কারণে আজ মমতাময়ী মায়েরা সন্তানের চোখের বিরক্তিকর এক বস্তুতে পরিণত হচ্ছে, বৃদ্ধ বয়সে আদর যত্নের বদলে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত পদে পদে লাঞ্চিত বঞ্চিত হচ্ছে সন্তানের কাছে।

সন্তান কতৃক মমতাময়ী মা’য়ের সেরকমই হ্রিদয়বিধারক ঘটনার শিকার যশোরের চৌগাছা উপজেলার ছায়ারন বিবি নামের এক ৭০ বছরের বৃদ্ধা। স্বামীর মৃত্যুর পর এবাড়ি ওবাড়ি কাজ করে জমানো পয়সা দিয়ে মানুষ করেছেন ছেলেদের। আশা ছিলো ছেলে বড় হয়ে মা-কে সেবা করবে, ভরনপোষণ দিবে, কিন্তু ছেলেদের বিয়ের পর মা ছায়ারন বিবি করুন বাস্তবতার মুখোমুখি। কোলে পিঠে করে যে সন্তানদের বড় করলেন বিয়ে করে সেই সন্তানেরা এখন মাকে চেনেনা!

পৃথিবীর কি নির্মম পরিনতির জন্য অপেক্ষা করেছিলেন ছায়ারন বিবি? বিয়ের পর ছেলেরা স্ত্রীদের তোপের মুখে মাকে আর বাড়িতে যায়গা দিল না। বৃদ্ধা মায়ের আশ্রয় বাঁশবাগানের ঝাড়ে! তাও গরুর গোবরের গর্তের কাছে? মায়ের জমানো কিছু টাকা দিয়ে  ছোট্ট বেলার সেই আদরের সন্তানেররাই ঝুপড়ি ঘরটি বানিয়ে দিয়েছে বলে জানান এলাকাবাসী।

ইউএনও কাফী বিন

প্র প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ইশতিয়াক আহমেদ দুটি কম্বল, চ, ডাল আলুসহ খাবার নিয়ে হাজির হন সেব্যক্তিগতভাবে একহাজার টাকা নগদ দেন বৃদ্ধাকে। তিনি সেখ প সাথে। শেষে বড় ছেলের পাকা ঘরের বারান্দায় তুলে দেন। নবনির্বাচিত ইউপি সদস্য শাহিনুর রহমানকে এসময় নির্দেশ দেন তিন ছেলেকে আগামী দুই দিনের মধ্যে ইউএনও অফিসে যেতে। তিনি বৃদ্ধাকে প্রত

বৃহস্পতিবার দুপুরে স্থান৷ ৷৷৷৷৷৷৷৷৷৷৷৷৷৷৷  ৷৷৷৷৷৷৷   সহকারী কমিশনার (ভূমি) প্রশলী কাফী বিন কবির এবং উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ইশতিয়াক আহমেদ দুটি কম্বল, চাল, ডাল আলুসহ খাবার নিয়ে হাজির হন সেখানে। ব্যক্তিগতভাবে একহাজার টাকা নগদ দেন বৃদ্ধাকে। তিনি সেখানে একটি কাঠের পিড়িতে ইউএনও নিজে বসে বৃদ্ধাকে চেয়ারে বসিয়ে কথা বলেন তাঁর সাথে। শেষে বড় ছেলের পাকা ঘরের বারান্দায় তুলে দেন। নবনির্বাচিত ইউপি সদস্য শাহিনুর রহমানকে এসময় নির্দেশ দেন তিন ছেলেকে আগামী দুই দিনের মধ্যে ইউএনও অফিসে যেতে। তিনি বৃদ্ধাকে প্রতিশ্রুতি দেন আপনাকে আর না খেয়ে এভাবে ঝুপড়িতে থাকতে হবে না।


তবে ইউএনও আসার খবর পেয়েই বাড়িতে তালা দিয়ে সড়ে পড়েন ছেলের বউরা। আগে থেকেই মাঠে কাজ করায় বাড়িতে ছিলেননা বৃদ্ধার ছেলেরা। এসময় কাফী বিন কবির ছেলেদের বিচার করার কথা বলতেই কেঁদে ফেলেন বৃদ্ধা। ইউএনওর হাত জড়িয়ে ধরে বলতে থাকেন ‘‘না না না সোনা। ওদের ধরতি হবে না। ওরা জন মাইনে খেটে খাচ্ছে। ওদের কিছু বলবেন না।’’

বৃদ্ধা ছায়রন বলেন, সকালে গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য ও স্বর্পরাজপুর দাখিল মাদরাসার সুপার আম্মাদুল তাঁকে খাবার দিয়ে গিয়েছিলেন। সেই খাবার ছাড়া দুপুর পর্যন্ত আর কিছু খাননি। তিনি ইউএনওর কাছে অভিযোগ করেন ছেলে ও পুত্রবধূরা তাঁকে বাড়িতেই যেতে দেন না। মাঝেমাঝে খাবার দিয়ে যান। বিষয়টি গ্রামের মানুষ দীর্ঘদিন ধরে জানলেও কোন প্রতিকার পাননি তিনি।

ছায়রনের প্রতিবেশি আয়েশা জনান, স্বামীর মৃত্যুর সময় তাঁর ছোট ছেলের বয়স ছিল ৫/৭ বছর। সে ছেলেও মারা গেছেন। ছোট ছেলের মেয়েরও বিয়ে হয়ে গেছে। এসব অভিযোগ তুলে বাঁশ ঝাড়ে গোবরের সারের গর্তের পাশে ময়লার মধ্যে তাঁকে রেখেছেন ছেলে-বউরা। ঝুপড়িটিও বৃদ্ধার নিজের কাজ করে জমানো টাকার। সেখান থেকেও টাকা নিয়ে নিয়েছেন ছেলেরা। দীর্ঘদিন ধরে বৃদ্ধা রোদবৃষ্টি ঝড়ে এই বাঁশ ঝড়েই থাকেন। কাথাবালিশে পেশাব-পায়খানা করে দিলেও ছেলে-বৌরা পরিস্কার করেন না। পাশের জগদীশপুর গ্রামের এক নারী এবং গ্রামের কিছু মানুষ মাঝে মধ্যে পরিস্কার করে দেন এসব।

গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য আম্মাদুল ইসলাম বলেন মা’র খাবার দেয়া বা ঘরে রাখার মত সক্ষমতা ছেলেদের আছে। তাঁর ছেলে ও নাতী যারা আছে তাঁরা প৷৷৷৷৷৷৷৷৷৷  একদিন করে খেতে দিলেও এক সপ্তাহ হয়ে যায়।বে ওদের বারবার বললেও তাঁরা কারও কথা শোনেন

এবিষয়ে ইউএনওর দায়িত্বপালনকারী সহকারী কমিশনার (ভূমি) কাফী বিন কবির বলেন, এটা খুবই অমানবিক বিষয়। মা’কে এভাবে বাঁশঝাড়ে ময়লা আবর্জনার মধ্যে রাখার মত খারাপ অবস্থায় তাঁরা নেই। আমরা তাকে আপাতত কিছু খাবার, হাত খরচ ও দুটি কম্বল দিয়ে ছেলের ঘরে তুলে দিয়ে এসেছি। তাঁর ছেলেদের অফিসে আসতে বলা হয়েছে। তাঁদের সাথে কথা বলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

দৈনিক বরিশাল ২৪

পাকা দালানে ছেলেরা বৃদ্ধা ‘মা’য়ের আশ্রয় বাঁশঝাড়ে, উদ্ধার করলেন ইউএনও কাফী

শনিবার, নভেম্বর ২৭, ২০২১ ১:৪৭ পূর্বাহ্ণ | আপডেটঃ নভেম্বর ২৭, ২০২১ ১:৫৭ পূর্বাহ্ণ

সোহেল আহমেদঃ ‘মা‘ পৃথিবীর সবচেয়ে প্ন    তাঁর স্নেহের সন্তানের পৃথিবীর আলো দেখা, দশমাস দশদিন গর্ভেধারণ করে মৃত্যু যন্ত্ জন্মদিলেন সন্তান! অথছ নৈতিক শিক্ষার অবক্ষয় আর বউপ্রিতি সহ নানা কারণে আজ মমতাময়ী মায়েরা সন্তানের চোখের বিরক্তিকর এক বস্তুতে পরিণত হচ্ছে, বৃদ্ধ বয়সে আদর যত্নের বদলে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত পদে পদে লাঞ্চিত বঞ্চিত হচ্ছে সন্তানের কাছে।

সন্তান কতৃক মমতাময়ী মা’য়ের সেরকমই হ্রিদয়বিধারক ঘটনার শিকার যশোরের চৌগাছা উপজেলার ছায়ারন বিবি নামের এক ৭০ বছরের বৃদ্ধা। স্বামীর মৃত্যুর পর এবাড়ি ওবাড়ি কাজ করে জমানো পয়সা দিয়ে মানুষ করেছেন ছেলেদের। আশা ছিলো ছেলে বড় হয়ে মা-কে সেবা করবে, ভরনপোষণ দিবে, কিন্তু ছেলেদের বিয়ের পর মা ছায়ারন বিবি করুন বাস্তবতার মুখোমুখি। কোলে পিঠে করে যে সন্তানদের বড় করলেন বিয়ে করে সেই সন্তানেরা এখন মাকে চেনেনা!

পৃথিবীর কি নির্মম পরিনতির জন্য অপেক্ষা করেছিলেন ছায়ারন বিবি? বিয়ের পর ছেলেরা স্ত্রীদের তোপের মুখে মাকে আর বাড়িতে যায়গা দিল না। বৃদ্ধা মায়ের আশ্রয় বাঁশবাগানের ঝাড়ে! তাও গরুর গোবরের গর্তের কাছে? মায়ের জমানো কিছু টাকা দিয়ে  ছোট্ট বেলার সেই আদরের সন্তানেররাই ঝুপড়ি ঘরটি বানিয়ে দিয়েছে বলে জানান এলাকাবাসী।

ইউএনও কাফী বিন

প্র প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ইশতিয়াক আহমেদ দুটি কম্বল, চ, ডাল আলুসহ খাবার নিয়ে হাজির হন সেব্যক্তিগতভাবে একহাজার টাকা নগদ দেন বৃদ্ধাকে। তিনি সেখ প সাথে। শেষে বড় ছেলের পাকা ঘরের বারান্দায় তুলে দেন। নবনির্বাচিত ইউপি সদস্য শাহিনুর রহমানকে এসময় নির্দেশ দেন তিন ছেলেকে আগামী দুই দিনের মধ্যে ইউএনও অফিসে যেতে। তিনি বৃদ্ধাকে প্রত

বৃহস্পতিবার দুপুরে স্থান৷ ৷৷৷৷৷৷৷৷৷৷৷৷৷৷৷  ৷৷৷৷৷৷৷   সহকারী কমিশনার (ভূমি) প্রশলী কাফী বিন কবির এবং উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ইশতিয়াক আহমেদ দুটি কম্বল, চাল, ডাল আলুসহ খাবার নিয়ে হাজির হন সেখানে। ব্যক্তিগতভাবে একহাজার টাকা নগদ দেন বৃদ্ধাকে। তিনি সেখানে একটি কাঠের পিড়িতে ইউএনও নিজে বসে বৃদ্ধাকে চেয়ারে বসিয়ে কথা বলেন তাঁর সাথে। শেষে বড় ছেলের পাকা ঘরের বারান্দায় তুলে দেন। নবনির্বাচিত ইউপি সদস্য শাহিনুর রহমানকে এসময় নির্দেশ দেন তিন ছেলেকে আগামী দুই দিনের মধ্যে ইউএনও অফিসে যেতে। তিনি বৃদ্ধাকে প্রতিশ্রুতি দেন আপনাকে আর না খেয়ে এভাবে ঝুপড়িতে থাকতে হবে না।


তবে ইউএনও আসার খবর পেয়েই বাড়িতে তালা দিয়ে সড়ে পড়েন ছেলের বউরা। আগে থেকেই মাঠে কাজ করায় বাড়িতে ছিলেননা বৃদ্ধার ছেলেরা। এসময় কাফী বিন কবির ছেলেদের বিচার করার কথা বলতেই কেঁদে ফেলেন বৃদ্ধা। ইউএনওর হাত জড়িয়ে ধরে বলতে থাকেন ‘‘না না না সোনা। ওদের ধরতি হবে না। ওরা জন মাইনে খেটে খাচ্ছে। ওদের কিছু বলবেন না।’’

বৃদ্ধা ছায়রন বলেন, সকালে গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য ও স্বর্পরাজপুর দাখিল মাদরাসার সুপার আম্মাদুল তাঁকে খাবার দিয়ে গিয়েছিলেন। সেই খাবার ছাড়া দুপুর পর্যন্ত আর কিছু খাননি। তিনি ইউএনওর কাছে অভিযোগ করেন ছেলে ও পুত্রবধূরা তাঁকে বাড়িতেই যেতে দেন না। মাঝেমাঝে খাবার দিয়ে যান। বিষয়টি গ্রামের মানুষ দীর্ঘদিন ধরে জানলেও কোন প্রতিকার পাননি তিনি।

ছায়রনের প্রতিবেশি আয়েশা জনান, স্বামীর মৃত্যুর সময় তাঁর ছোট ছেলের বয়স ছিল ৫/৭ বছর। সে ছেলেও মারা গেছেন। ছোট ছেলের মেয়েরও বিয়ে হয়ে গেছে। এসব অভিযোগ তুলে বাঁশ ঝাড়ে গোবরের সারের গর্তের পাশে ময়লার মধ্যে তাঁকে রেখেছেন ছেলে-বউরা। ঝুপড়িটিও বৃদ্ধার নিজের কাজ করে জমানো টাকার। সেখান থেকেও টাকা নিয়ে নিয়েছেন ছেলেরা। দীর্ঘদিন ধরে বৃদ্ধা রোদবৃষ্টি ঝড়ে এই বাঁশ ঝড়েই থাকেন। কাথাবালিশে পেশাব-পায়খানা করে দিলেও ছেলে-বৌরা পরিস্কার করেন না। পাশের জগদীশপুর গ্রামের এক নারী এবং গ্রামের কিছু মানুষ মাঝে মধ্যে পরিস্কার করে দেন এসব।

গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য আম্মাদুল ইসলাম বলেন মা’র খাবার দেয়া বা ঘরে রাখার মত সক্ষমতা ছেলেদের আছে। তাঁর ছেলে ও নাতী যারা আছে তাঁরা প৷৷৷৷৷৷৷৷৷৷  একদিন করে খেতে দিলেও এক সপ্তাহ হয়ে যায়।বে ওদের বারবার বললেও তাঁরা কারও কথা শোনেন

এবিষয়ে ইউএনওর দায়িত্বপালনকারী সহকারী কমিশনার (ভূমি) কাফী বিন কবির বলেন, এটা খুবই অমানবিক বিষয়। মা’কে এভাবে বাঁশঝাড়ে ময়লা আবর্জনার মধ্যে রাখার মত খারাপ অবস্থায় তাঁরা নেই। আমরা তাকে আপাতত কিছু খাবার, হাত খরচ ও দুটি কম্বল দিয়ে ছেলের ঘরে তুলে দিয়ে এসেছি। তাঁর ছেলেদের অফিসে আসতে বলা হয়েছে। তাঁদের সাথে কথা বলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

প্রকাশক: মোসাম্মাৎ মনোয়ারা বেগম। সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: ইঞ্জিনিয়ার জিহাদ রানা। সম্পাদক : শামিম আহমেদ যুগ্ন-সম্পাদক : মো:মনিরুজ্জামান। প্রধান উপদেষ্টা: মোসাম্মৎ তাহমিনা খান বার্তা সম্পাদক : মো: শহিদুল ইসলাম ।
প্রধান কার্যালয় : রশিদ প্লাজা,৪র্থ তলা,সদর রোড,বরিশাল।
সম্পাদক: 01711970223 বার্তা বিভাগ: 01764- 631157
ইমেল: sohelahamed2447@gmail.com
  সড়ক দুর্ঘটনায় বরিশালের সাংবাদিক মাসুদ রানা নিহত   ডিসির পাশে মুক্তিযোদ্ধা ও রেমিট্যান্স যোদ্ধাদের সম্মানে আসন   ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা নিয়ে তর্ক, বন্ধুর হাতে বন্ধু খুন   রিচার্লিসনের অবিশ্বাস্য গোলে ব্রাজিলের উড়ন্ত সূচনা   ইনজুরিতে নেইমার?   দেশের শ্রেষ্ট জেলা প্রশাসক পদক পেলেন বরিশালের ডিসি জসিম উদ্দিন হায়দার   শেয়ার দিন, ছোট্ট শিশু আয়াত কে খুঁজে পেতে সহায়তা করুন   একজন সচেতন অভিভাবক ছিলেন আনিসুর রহমান   বরিশালে ৩ বিড়ালের নাম হলো শাকিব খান, অপু বিশ্বাস, বুবলী   চট্টগ্রামে বিএনপির গণ-সমাবেশে জনস্রোত   নর্থ বেঙ্গল কিন্ডারগার্টেন এন্ড প্রি-ক্যাডেট স্কুল সোসাইটির শিক্ষক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত   বরিশালের শ্রেষ্ঠ বিদ্যোৎসাহী সমাজকর্মী হলেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ফারজানা ওহাব   ঢাকা-বরিশাল রুটে বিমান সার্ভিস বন্ধের ষড়যন্ত্র!   যাত্রী সংকটে বন্ধ হলো ঐতিহ্যবাহী প্যাডেল স্টিমার   বাবুগঞ্জ বাজারে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি   শেরপুরে স্কুল ছাত্রের সাইকেল চুরি, কিনে দিলেন এসপি কামরুজ্জামান   বরিশালে জাপায় সংঘর্ষঃ ব্যানারে রওশনের ছবি ব্যবহারই মূল কারণ   সমাজ সেবায় অবদান রাখায় গুণীজন সম্মাননা পেলেন অধ্যক্ষ তাহমিনা আকতার   দেশবাসীর প্রশংসায় ভাসছেন খুদে হাফেজ তাকরিম   বরিশালে জাপার কো-চেয়ারম্যানের সামনেই দুই পক্ষের সংঘর্ষ জেলা সাংগঠনিক সভা পন্ড