দৈনিক বরিশাল ২৪ভোলায় ক্রমেই বিলুপ্ত হচ্ছে বেতগাছ! | দৈনিক বরিশাল ২৪

প্রকাশিতঃ জানুয়ারি ২৩, ২০২০ ৩:৩৬ অপরাহ্ণ
A- A A+ Print

ভোলায় ক্রমেই বিলুপ্ত হচ্ছে বেতগাছ!

এ,কে এম গিয়াসউদ্দিন [ভোলা]: ভোলায় বেথুন /বেত গাছ হারিয়ে যেতে বসেছে বেতগাছ। লতাপাতা আর সবুজ শ্যামলে ভরপুর ছিল এই জেলার গ্রাম-বাংলার পথঘাট প্রান্তর ও লোকালয় কিন্তু সেই সৌন্দর্য এখন হুমকির মুখে। আগে জেলার গ্রাম্যঅঞ্চলে অনেক দেশি গাছগাছালি পাওয়া যেত কিন্তু এখন অনেক গাছগাছালি বিলুপ্তির পথে। এর মধ্যে অন্যতম বেতগাছ।

এখন আর আগের মতো গ্রামে-গঞ্জে দেখা যায় না। তবে এই বেত গাছ বহু নামে পরিচিত যেমন- বেত গাছ, বেথুনগাছ, বেতগুটি ও বেত্তুইন নামে পরিচিত। সাধারণভাবে বেতগাছ নামে চেনে, এই বেত গাছ বাংলাদেশ, ভুটান, কম্বোডিয়া, লাওস, মায়ানমার, থাইল্যান্ড, ভিয়েতনাম, ভারত, জাভা অঞ্চলের উদ্ভিদ বেতগাছ। ক্রান্তীয় উপক্রান্তীয় ভেজা ও জলা নিচু ভূমিতে ভাল জন্মে।

গ্রাম বাংলার নৈসর্গিক শোভা বিস্তারে এ গাছের জুড়ি নেই। এখন আর আগের মত বেতগাছ দেখা মেলে না। গ্রাম বাংলার বাড়ির আনাচে কানাচে রাস্তার পাশে বা পতিত জমিতে ও লতা পাতা জঙ্গলের মধ্যে ছিল চির সবুজ এই উদ্ভিদটি। বেতগাছ ৪৫ থেকে ৫৫ ফুট এবং কখনো কখনো তার চেয়ে বেশি লম্বা হয়ে থাকে। বেতগাছে ফুল হয় পরে ফল হয়।

ফলটি পাকলে দেখতে ঘিয়ে রং মত, খেতে খুব মিষ্টি ও সুস্বাদু ফল। দুই থেকে তিন দশক আগেও আমাদের দেশে গ্রাম বাংলার বন জঙ্গলে ধারে নানা ধরনের বেতগাছ দেখা যেত। আর এখন এ গাছটি এখন দুর্লভ বস্তুতে পরিণত হয়েছে।

বর্তমান বাজার হাটে বা মেলায় শুকনা বেত দেখা যায় না। শুকনা বেত দিয়ে চেয়ার, টেবিল, মোড়া, ধামা, পালি, ডালা, দোলনা, র‌্যাক, সোফা, ফুলদানীসহ বহু রকমের আসবাবপত্র তৈরি হতো। বর্তমান গ্রাম অঞ্চলে এখন আর এ গাছ দেখা যায় না। বিভিন্ন বেতের আসবাবপত্র ঘর সাজানো, দৃষ্টিনন্দন টেকসই ও মূল্যবান যে কারণে বেতের কদর এখনো সকলের কাছে সমাদৃত। ঐতিহ্যবাহী বেত শিল্পকে টিকিয়ে রাখার চেষ্টা করছে।

এদিকে, বেতের জায়গা দখল করে নিয়েছে লোহার ফ্রেম করে প্লাস্টিকের বেত তৈরি করে আসবাবপত্র তৈরি হচ্ছে এমনকি লোহা স্টিল, কাঠ পার্টেক্স বোর্ড আরো অনেক রকমের আসবাবপত্র তৈরি হচ্ছে। এখন একপ্রকার এই ঐতিহ্যবাহী বেতগাছ আমাদের মাঝ থেকে বিলুপ্তি হয়ে গেছে বলা যায়।

দৈনিক বরিশাল ২৪

ভোলায় ক্রমেই বিলুপ্ত হচ্ছে বেতগাছ!

বৃহস্পতিবার, জানুয়ারি ২৩, ২০২০ ৩:৩৬ অপরাহ্ণ

এ,কে এম গিয়াসউদ্দিন [ভোলা]: ভোলায় বেথুন /বেত গাছ হারিয়ে যেতে বসেছে বেতগাছ। লতাপাতা আর সবুজ শ্যামলে ভরপুর ছিল এই জেলার গ্রাম-বাংলার পথঘাট প্রান্তর ও লোকালয় কিন্তু সেই সৌন্দর্য এখন হুমকির মুখে। আগে জেলার গ্রাম্যঅঞ্চলে অনেক দেশি গাছগাছালি পাওয়া যেত কিন্তু এখন অনেক গাছগাছালি বিলুপ্তির পথে। এর মধ্যে অন্যতম বেতগাছ।

এখন আর আগের মতো গ্রামে-গঞ্জে দেখা যায় না। তবে এই বেত গাছ বহু নামে পরিচিত যেমন- বেত গাছ, বেথুনগাছ, বেতগুটি ও বেত্তুইন নামে পরিচিত। সাধারণভাবে বেতগাছ নামে চেনে, এই বেত গাছ বাংলাদেশ, ভুটান, কম্বোডিয়া, লাওস, মায়ানমার, থাইল্যান্ড, ভিয়েতনাম, ভারত, জাভা অঞ্চলের উদ্ভিদ বেতগাছ। ক্রান্তীয় উপক্রান্তীয় ভেজা ও জলা নিচু ভূমিতে ভাল জন্মে।

গ্রাম বাংলার নৈসর্গিক শোভা বিস্তারে এ গাছের জুড়ি নেই। এখন আর আগের মত বেতগাছ দেখা মেলে না। গ্রাম বাংলার বাড়ির আনাচে কানাচে রাস্তার পাশে বা পতিত জমিতে ও লতা পাতা জঙ্গলের মধ্যে ছিল চির সবুজ এই উদ্ভিদটি। বেতগাছ ৪৫ থেকে ৫৫ ফুট এবং কখনো কখনো তার চেয়ে বেশি লম্বা হয়ে থাকে। বেতগাছে ফুল হয় পরে ফল হয়।

ফলটি পাকলে দেখতে ঘিয়ে রং মত, খেতে খুব মিষ্টি ও সুস্বাদু ফল। দুই থেকে তিন দশক আগেও আমাদের দেশে গ্রাম বাংলার বন জঙ্গলে ধারে নানা ধরনের বেতগাছ দেখা যেত। আর এখন এ গাছটি এখন দুর্লভ বস্তুতে পরিণত হয়েছে।

বর্তমান বাজার হাটে বা মেলায় শুকনা বেত দেখা যায় না। শুকনা বেত দিয়ে চেয়ার, টেবিল, মোড়া, ধামা, পালি, ডালা, দোলনা, র‌্যাক, সোফা, ফুলদানীসহ বহু রকমের আসবাবপত্র তৈরি হতো। বর্তমান গ্রাম অঞ্চলে এখন আর এ গাছ দেখা যায় না। বিভিন্ন বেতের আসবাবপত্র ঘর সাজানো, দৃষ্টিনন্দন টেকসই ও মূল্যবান যে কারণে বেতের কদর এখনো সকলের কাছে সমাদৃত। ঐতিহ্যবাহী বেত শিল্পকে টিকিয়ে রাখার চেষ্টা করছে।

এদিকে, বেতের জায়গা দখল করে নিয়েছে লোহার ফ্রেম করে প্লাস্টিকের বেত তৈরি করে আসবাবপত্র তৈরি হচ্ছে এমনকি লোহা স্টিল, কাঠ পার্টেক্স বোর্ড আরো অনেক রকমের আসবাবপত্র তৈরি হচ্ছে। এখন একপ্রকার এই ঐতিহ্যবাহী বেতগাছ আমাদের মাঝ থেকে বিলুপ্তি হয়ে গেছে বলা যায়।

প্রকাশক: মোসাম্মাৎ মনোয়ারা বেগম। সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: ইঞ্জিনিয়ার জিহাদ রানা। সম্পাদক : শামিম আহমেদ যুগ্ন-সম্পাদক : মো:মনিরুজ্জামান। প্রধান উপদেষ্টা: মোসাম্মৎ তাহমিনা খান বার্তা সম্পাদক : মো: শহিদুল ইসলাম ।
প্রধান কার্যালয় : রশিদ প্লাজা,৪র্থ তলা,সদর রোড,বরিশাল।
সম্পাদক: 01711970223 বার্তা বিভাগ: 01764- 631157
ইমেল: sohelahamed2447@gmail.com
  বাইডেন বললেন ‘ইনশা-আল্লাহ’   ‘মসজিদে ব্যনার সাঁটিয়ে একটি মহল আওয়ামী লীগের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করেছেন`   কুয়েতের আমিরের মৃত্যুতে বাংলাদেশে রাষ্ট্রীয় শোক বৃহস্পতিবার   চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায় সাম্বার হরিণ শাবকের জন্ম   বাবরি মসজিদ ধ্বংসের মামলায় ৩৬ আসামি বেকসুর খালাস   বরিশালে হাসানাত আবদুল্লাহর সুস্থতা কামনা করে দোয়া মোনাজাত অনুষ্ঠিত   রিফাত হত্যার মূল পরিকল্পনাকারী ছিলেন মিন্নি: রাষ্ট্রপক্ষ   আলোচিত রিফাত হত্যা মামলা: মিন্নিসহ ৬ জনের ফাঁসির আদেশ   হাসানাত আব্দুল্লাহ`র রোগমুক্তি কামনা করে বরিশালবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন তাপস   সাইবার ক্রাইম রোধে সবাইকে সতর্ক ভূমিকা পালন করতে হবে   বরিশালের রাজনৈতিক অভিভাবক হাসানাত আব্দুল্লাহ গুরুতর অসুস্থ,হাসপাতালে ভর্তি   তালতলী রাখাইন পল্লীতে বিলুপ্তির পথে তাঁতশিল্প   দর্জির কাজ করেন, করেন চিকিৎসাও!   প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দীর্ঘায়ু কামনা করে বরিশাল পুলিশের দোয়া ও মোনাজাত   দেশের সর্ববৃহৎ বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ম্যুরাল উদ্বোধন করলেন বিসিসি মেয়র সাদিক   প্রধানমন্ত্রীর ৭৪তম জন্মদিনে ৭৪ পাউন্ডের কেক কাটলেন নেতারা   অপরাধ দমনে পুলিশকে সহায়তা করার জন্য পুরস্কৃত হলেন লাইজু বেগম   অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম আর নেই   ফের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি বাড়ছে   অতিরিক্ত সচিব হলেন বরিশালের কৃতিসন্তান সফিকুজ্জামান