দৈনিক বরিশাল ২৪সংস্কারের সিদ্ধান্তে কেটে গেলো এক বছর, বাস্তবায়নের নাম নেই | দৈনিক বরিশাল ২৪

প্রকাশিতঃ সেপ্টেম্বর ০৮, ২০২০ ১২:০৬ পূর্বাহ্ণ
A- A A+ Print

সংস্কারের সিদ্ধান্তে কেটে গেলো এক বছর, বাস্তবায়নের নাম নেই

সিলেট প্রতিনিধিঃ ঝুকি পূর্ণ ও সংস্কারের কথা বলে প্রবেশ পথ বন্ধ করে দেওয়া হয় ক্বীন ব্রিজ। এর ফলে বন্ধ হয়ে যায় যান চলাচল। এতে ভোগান্তির সৃষ্টি হলেও সংস্কারের আশায় সেই সিদ্ধান্ত মেনে নেয় সাধারণ মানুষ। কিন্তু সিদ্ধান্তের এক বছর অতিবাহিত হলেও ঘুম ভাঙ্গেনি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের।

জানা যায়, ২০১৯ সালের ১ সেপ্টেম্বর সিলেটের ঐতিহ্যের ধারক কিন ব্রিজের দুই পাশের প্রবেশ পথে লোহার বেষ্টনী দিয়ে যান চলাচল বন্ধ করে দেয় সিটি কর্পোরেশন, সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগ এবং পুলিশ (ট্রাফিক বিভাগ)।

কিন্তু ১ মাস ২২ দিন পর দক্ষিণ সুরমার মানুষের তোপের মুখে পিএসসি-ইবতেদায়ী পরীক্ষার্থীদের কথা চিন্তা করে রিকশা চলাচলের জন্যে খুলে দেয়া হয় ব্রিজটির দু-পাশের লোহার বেষ্টনী। তবে সিসিকের পক্ষ থেকে বলা হয়েছিলো ঐতিহ্য রক্ষার জন্যে কিন ব্রিজ দিয়ে যানচলাচল বন্ধ থাকবে।

ব্রিজটি দেখভালের মূল দায়িত্ব সড়ক ও জনপদ বিভাগের। কিন্তু সংস্কারের দোহাই দিয়ে এক বছর পেরিয়ে গেলেও কাজ শুরু হয়নি। সংশ্লিষ্টদের দায়সার কাজে সচেতন মহলে দেখা দিয়েছে ক্ষোভ।

এদিকে শুরু থেকে কিন ব্রিজের দু’পাশ ভাসমান হকাররা দখল করে ব্যবসা করছেন। সেই সঙ্গে গত কয়েক মাস ধরেই ঝুঁকি পূর্ণ এই সেতু দিয়ে চলাচল করছে অটোরিকশা(সিএনজি)সহ বিভিন্ন ধরনের যানবাহন।

ব্রিজ বন্ধের ওই সময়ে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের (সিসিক) মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, দীর্ঘদিন ধরেই সেতুটি বেশ ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। সে কারণে সংস্কারের জন্য এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। প্রায় শতবর্ষী এই সেতু দিয়ে প্রতিদিন সুরমা নদী পার হয় অসংখ্য যানবাহন। ফলে সেতুর বিভিন্ন স্থানে গর্ত হওয়ায় যান চলাচল অনেকটাই ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। এ অবস্থায় ঐতিহাসিক এই স্থপনাটি সংস্কারের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

কিন্তু তার এই আশ্বাসের মাসের পর মাস পেড়িয়ে গেলেও পুরনো চিত্রটি রয়েছে ঐতিহ্যবাহী ব্রিজটি।
সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) সিলেটের সভাপতি ফারুক মাহমুদ চৌধুরী বলেন, কিন ব্রীজ সিলেটের ঐতিহ্য। এটিকে রক্ষা করা সবার দায়িত্ব। কিন ব্রীজে হেটে যাওয়ার মধ্যে আলাদা একটি আনন্দ রয়েছে। এছাড়া সংস্কারের কারনে এটি বন্ধ ছিল। কিন্তু একটি মহলের ইন্ধনে আবারও খুলে দেওয়া হয়েছে। যা দুঃখজনক।

তিনি বলেন, খুব শীগ্রই সংস্কার কাজ সম্পন্ন করা হোক। কিন ব্রীজের সৌন্দর্য ফিরিয়ে এনে যানবাহন চলাচল বন্ধ করা হলে সিলেটে গৌরব ও ঐহিত্য হিসেবে এটি মাথা উচু করে দাঁড়াতে পারবে। সিলেট সিটি করপোরেশন প্রধান নির্বাহী প্রকৌশলী নূর আজিজুর রহমান জানান,ব্রিজটি মূলত সড়ক ও জনপদ বিভাগের।

তিনি আরও জানান,ব্রিজটিতে যান চলাচল বন্ধ করার পর বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয়ে একটি মিটিং হয়। সে মিটিংয়ে সিসিক, সড়ক ও জনপদ বিভাগ এবং স্থানীয় সরকার বিভাগের কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। ওই মিটিংয়ে এ বিষয়ে একটি কমিটিও গঠন করা হয়। কমিটির পক্ষ থেকে ব্রিজে সংস্কার কাজ নিয়ে একটি প্রতিবেদন দেয়ার কথা ছিলো।

তবে সড়ক ও জনপদ বিভাগের সিলেটের নির্বাহী প্রকৌশলী রিতেশ বড়ুয়া জানান, কিন ব্রিজের সংস্কার কাজের জন্য বরাদ্দ পেতে আমরা ইতোমধ্যে মন্ত্রণালয়ে চিঠি প্রেরণ করেছি। এখনও বরাদ্দ আসেনি। বরাদ্দ আসলে কাজ শুরু করা হবে।

উল্লেখ্য, ব্রিটিশ শাসনামলে ১৯৩৩ সালে সুরমা নদীর ওপর কিনব্রিজ নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হয়। নির্মাণ শেষে ১৯৩৬ সালে সেতুটি আনুষ্ঠানিকভাবে খুলে দেয়া হয়। আসাম প্রদেশের তৎকালীন গভর্নর মাইকেল কিনের নামে এই সেতুর নাম রাখা হয় ‘কিন ব্রিজ’।

দৈনিক বরিশাল ২৪

সংস্কারের সিদ্ধান্তে কেটে গেলো এক বছর, বাস্তবায়নের নাম নেই

মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ৮, ২০২০ ১২:০৬ পূর্বাহ্ণ

সিলেট প্রতিনিধিঃ ঝুকি পূর্ণ ও সংস্কারের কথা বলে প্রবেশ পথ বন্ধ করে দেওয়া হয় ক্বীন ব্রিজ। এর ফলে বন্ধ হয়ে যায় যান চলাচল। এতে ভোগান্তির সৃষ্টি হলেও সংস্কারের আশায় সেই সিদ্ধান্ত মেনে নেয় সাধারণ মানুষ। কিন্তু সিদ্ধান্তের এক বছর অতিবাহিত হলেও ঘুম ভাঙ্গেনি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের।

জানা যায়, ২০১৯ সালের ১ সেপ্টেম্বর সিলেটের ঐতিহ্যের ধারক কিন ব্রিজের দুই পাশের প্রবেশ পথে লোহার বেষ্টনী দিয়ে যান চলাচল বন্ধ করে দেয় সিটি কর্পোরেশন, সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগ এবং পুলিশ (ট্রাফিক বিভাগ)।

কিন্তু ১ মাস ২২ দিন পর দক্ষিণ সুরমার মানুষের তোপের মুখে পিএসসি-ইবতেদায়ী পরীক্ষার্থীদের কথা চিন্তা করে রিকশা চলাচলের জন্যে খুলে দেয়া হয় ব্রিজটির দু-পাশের লোহার বেষ্টনী। তবে সিসিকের পক্ষ থেকে বলা হয়েছিলো ঐতিহ্য রক্ষার জন্যে কিন ব্রিজ দিয়ে যানচলাচল বন্ধ থাকবে।

ব্রিজটি দেখভালের মূল দায়িত্ব সড়ক ও জনপদ বিভাগের। কিন্তু সংস্কারের দোহাই দিয়ে এক বছর পেরিয়ে গেলেও কাজ শুরু হয়নি। সংশ্লিষ্টদের দায়সার কাজে সচেতন মহলে দেখা দিয়েছে ক্ষোভ।

এদিকে শুরু থেকে কিন ব্রিজের দু’পাশ ভাসমান হকাররা দখল করে ব্যবসা করছেন। সেই সঙ্গে গত কয়েক মাস ধরেই ঝুঁকি পূর্ণ এই সেতু দিয়ে চলাচল করছে অটোরিকশা(সিএনজি)সহ বিভিন্ন ধরনের যানবাহন।

ব্রিজ বন্ধের ওই সময়ে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের (সিসিক) মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, দীর্ঘদিন ধরেই সেতুটি বেশ ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। সে কারণে সংস্কারের জন্য এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। প্রায় শতবর্ষী এই সেতু দিয়ে প্রতিদিন সুরমা নদী পার হয় অসংখ্য যানবাহন। ফলে সেতুর বিভিন্ন স্থানে গর্ত হওয়ায় যান চলাচল অনেকটাই ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। এ অবস্থায় ঐতিহাসিক এই স্থপনাটি সংস্কারের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

কিন্তু তার এই আশ্বাসের মাসের পর মাস পেড়িয়ে গেলেও পুরনো চিত্রটি রয়েছে ঐতিহ্যবাহী ব্রিজটি।
সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) সিলেটের সভাপতি ফারুক মাহমুদ চৌধুরী বলেন, কিন ব্রীজ সিলেটের ঐতিহ্য। এটিকে রক্ষা করা সবার দায়িত্ব। কিন ব্রীজে হেটে যাওয়ার মধ্যে আলাদা একটি আনন্দ রয়েছে। এছাড়া সংস্কারের কারনে এটি বন্ধ ছিল। কিন্তু একটি মহলের ইন্ধনে আবারও খুলে দেওয়া হয়েছে। যা দুঃখজনক।

তিনি বলেন, খুব শীগ্রই সংস্কার কাজ সম্পন্ন করা হোক। কিন ব্রীজের সৌন্দর্য ফিরিয়ে এনে যানবাহন চলাচল বন্ধ করা হলে সিলেটে গৌরব ও ঐহিত্য হিসেবে এটি মাথা উচু করে দাঁড়াতে পারবে। সিলেট সিটি করপোরেশন প্রধান নির্বাহী প্রকৌশলী নূর আজিজুর রহমান জানান,ব্রিজটি মূলত সড়ক ও জনপদ বিভাগের।

তিনি আরও জানান,ব্রিজটিতে যান চলাচল বন্ধ করার পর বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয়ে একটি মিটিং হয়। সে মিটিংয়ে সিসিক, সড়ক ও জনপদ বিভাগ এবং স্থানীয় সরকার বিভাগের কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। ওই মিটিংয়ে এ বিষয়ে একটি কমিটিও গঠন করা হয়। কমিটির পক্ষ থেকে ব্রিজে সংস্কার কাজ নিয়ে একটি প্রতিবেদন দেয়ার কথা ছিলো।

তবে সড়ক ও জনপদ বিভাগের সিলেটের নির্বাহী প্রকৌশলী রিতেশ বড়ুয়া জানান, কিন ব্রিজের সংস্কার কাজের জন্য বরাদ্দ পেতে আমরা ইতোমধ্যে মন্ত্রণালয়ে চিঠি প্রেরণ করেছি। এখনও বরাদ্দ আসেনি। বরাদ্দ আসলে কাজ শুরু করা হবে।

উল্লেখ্য, ব্রিটিশ শাসনামলে ১৯৩৩ সালে সুরমা নদীর ওপর কিনব্রিজ নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হয়। নির্মাণ শেষে ১৯৩৬ সালে সেতুটি আনুষ্ঠানিকভাবে খুলে দেয়া হয়। আসাম প্রদেশের তৎকালীন গভর্নর মাইকেল কিনের নামে এই সেতুর নাম রাখা হয় ‘কিন ব্রিজ’।

প্রকাশক: মোসাম্মাৎ মনোয়ারা বেগম। সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: ইঞ্জিনিয়ার জিহাদ রানা। সম্পাদক : শামিম আহমেদ যুগ্ন-সম্পাদক : মো:মনিরুজ্জামান। প্রধান উপদেষ্টা: মোসাম্মৎ তাহমিনা খান বার্তা সম্পাদক : মো: শহিদুল ইসলাম ।
প্রধান কার্যালয় : রশিদ প্লাজা,৪র্থ তলা,সদর রোড,বরিশাল।
সম্পাদক: 01711970223 বার্তা বিভাগ: 01764- 631157
ইমেল: sohelahamed2447@gmail.com
  অতিরিক্ত সচিব হলেন বরিশালের কৃতিসন্তান সফিকুজ্জামান   বরিশাল রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি নির্বাচিত নজরুল বিশ্বাস, সম্পাদক মিথুন সাহা   মাদকমুক্ত না হওয়া পর্যন্ত রসুলপুরে পুলিশের অভিযান চলবে: উপ-পুলিশ কমিশনার   শারদীয় দূর্গাপূজাঁয় তিন দিনের সরকারি ছুটির দাবিতে নড়াইলে মানববন্ধন   তেঁতুলিয়ায় নির্যাতন থেকে বাঁচতে মাদকাসক্ত ছেলেকে ধরিয়ে দিলেন মা   দাগনভূঞায় বাসা বাড়িতে অবৈধ গ্যাস সংযোগ, দুই লাখ ১০ হাজার টাকা জরিমানা   ভোলায় সঠিক পদক্ষেপ না নেয়ায় শেষ পর্যন্ত নদীগর্ভে চারতলা স্কুল ভবন   স্ত্রীর ভালোবাসার জন্য সিলেট থেকে হাতি কিনে দিলেন স্বামী   শিবগঞ্জের গুপ্ত মানিকে র‌্যাবের অভিযানে ১২’শ পিস ইয়াবাসহ যুবক গ্রেপ্তার   বাকেরগন্জে ফেরী উদ্বোধন করলেন জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য রতনা আমিন   দুর্নীতির চিন্তা মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলতে হবে : বিএমপি কমিশনার শাহাবুদ্দিন খান   তালতলীতে ইউপি উপনির্বাচন আ’লীগের একাধিক ও বিএনপি’র একক প্রার্থী মাঠে   মাদকের ভয়াল থাবা শার্শা-বেনাপোল সীমান্তে ২৬ দিনে শিশুসহ আটক ৪০ জন   দৈনিক বরিশাল২৪.কম এর প্রধান উপদেষ্টা অধ্যক্ষ তাহমিনা`র আজ শুভ জন্মদিন   অবশেষে পুলিশ হেফাজত থেকে ছাড়া পেলেন সাবেক ভিপি নূর   মাস্ক পরে মসজিদে যাওয়ার পরামর্শ প্রধানমন্ত্রীর   ভিপি নূর গ্রেফতার   মুজিববর্ষ উপলক্ষে বরিশালে অগ্নি নিরাপত্তা বিষয়ক প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত   করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত অভিবাসীদের মাঝে ঋণের চেক বিতরণ   রংপুরে শরতেই শীত-বর্ষার আমেজ